গুগল ডকস দিয়ে কোলাবরেটিভ রিসার্চ আর্টিকেল

একাধিক লেখক একসাথে কোন সায়েন্টিফিক আর্টিকেল লিখতে গেলে গুগল ডকস হতে পারে সবচেয়ে সহজ এবং এফিশিয়েন্ট মাধ্যম। এই আর্টিকেলে আমি কাজের ধারা বর্ণনা করব। এটি আমার কোলাবরেরটরদের জন্যই লেখা। তবে অন্য যারা কোলাবরেটিভ কাজ করেন এবং মাইক্রোসফট ওয়ার্ড ব্যবহার করেন তাদের জন্যও কাজে দেবে।

যাদের জন্য এই লেখা

১। আপনি আর্টিকেলটি মাইক্রোসফট ওয়ার্ডে তৈরী করবেন এবং সেভাবেই জার্নালে সাবমিট করবেন
২। আপনি রেফারেন্স ম্যানেজার হিসেবে মেন্ডেলি বা এন্ডনোট বা সেরকম কোন সফটঅয়্যার ব্যবহার করবেন
৩। একাধিক অথর একসাথে লিখবেন বা সংযোজন বা বিয়োজন করবেন

যাদের জন্য এই লেখা নয় বা যারা এ থেকে কোন সুবিধা পাবেনা না

১। যারা LaTeX দিয়ে পেপার তৈরী করবেন
২। যে আর্টিকেলে আপনিই একমাত্র অথর এবং কোলাবেরট করছেন না বা কোলাবরেট করলেও আপনি একাই আর্টিকেলটি প্রস্তত করছেন

Read More

আগ্রহী গবেষক খুঁজছি

একটা বিড়ালের একটা ইঁদুর খেতে ১ মিনিট লাগলে ১০০টা বিড়ালের ১০০টা ইঁদুর খেতে কয় মিনিট লাগবে? এরকম একটা প্রশ্ন অনেক আগে শুনেছিলাম। সব কন্ডিশন ঠিক থাকলে ১ মিনিটই লাগার কথা। সহজ উত্তর।

আমরা এই মুহূর্তে দুই জন রিসার্চার দুইটি ইন্ডিপেন্ডেন্ট প্রজেক্ট লিড করছি। ৩-৫ মাসের মধ্যে হয়তো ড্রাফট তৈরী হবে। আরো ৬ মাসের মধ্যে আশা করা যায় পাবলিশ হবে অথবা রিভিশন হবে।

অর্থাৎ এই রেইটে বছরে ২টি পাবলিকেশন করা যাবে।

এখন দুই জনের জায়গায় যদি আমরা ১০ জন ইন্ডিপেন্ডেন্ট রিসার্চার বসাতে পারি তাহলে বছরে কয়টা হাই ইমপ্যাক্ট পাবলিকেশন হবে? এভাবে যদি আমরা ১০০জনের একটা টিম করতে পারি তাহলে বছরে কতগুলো হবে?

Read More

Collaborative Research Bangla Wordcloud

কোলাবরেটিভ গবেষণা কাজের আহবান

এই লেখাটি নতুন/পুরাতন এবং আগ্রহী ছাত্র-ছাত্রী যারা গবেষণায় হাতে খড়ি নিতে কিংবা গবেষণার কাজ এগিয়ে নিতে চায় তাদের জন্য। যে সমস্যাগুলো আমি এখানে দিবো সেগুলো যদি আপনি করা শুরু করেন তাহলে বুঝতে পারবেন আপনার টেকনিক্যাল দক্ষতার লেভেল কোথায় আর কীভাবে আপনাকে ইনপ্রুভ করতে হবে। কিছু কিছু সমস্যা আমি উল্লেখ করবো যেগুলো গবেষণায় যারা ইতোমধ্যে অভিজ্ঞ তাদের জন্য উপযোগী হবে।

নীচে ইন্টারেস্টিং কিছু কাজের আইডিয়া দিচ্ছি। এই কাজগুলো করে কোন জার্নালে পাবলিশ করা হয়তো যাবে না কিন্তু সে ধরনের কাজ করার জন্য আপনাদের প্রস্তত করতে সহায়ক হবে।

Read More