Skip to main content

আগ্রহী গবেষক খুঁজছি

একটা বিড়ালের একটা ইঁদুর খেতে ১ মিনিট লাগলে ১০০টা বিড়ালের ১০০টা ইঁদুর খেতে কয় মিনিট লাগবে? এরকম একটা প্রশ্ন অনেক আগে শুনেছিলাম। সব কন্ডিশন ঠিক থাকলে ১ মিনিটই লাগার কথা। সহজ উত্তর।

আমরা এই মুহূর্তে দুই জন রিসার্চার দুইটি ইন্ডিপেন্ডেন্ট প্রজেক্ট লিড করছি। ৩-৫ মাসের মধ্যে হয়তো ড্রাফট তৈরী হবে। আরো ৬ মাসের মধ্যে আশা করা যায় পাবলিশ হবে অথবা রিভিশন হবে।

অর্থাৎ এই রেইটে বছরে ২টি পাবলিকেশন করা যাবে।

এখন দুই জনের জায়গায় যদি আমরা ১০ জন ইন্ডিপেন্ডেন্ট রিসার্চার বসাতে পারি তাহলে বছরে কয়টা হাই ইমপ্যাক্ট পাবলিকেশন হবে? এভাবে যদি আমরা ১০০জনের একটা টিম করতে পারি তাহলে বছরে কতগুলো হবে?

Read More

Collaborative Research Bangla Wordcloud

কোলাবরেটিভ গবেষণা কাজের আহবান

এই লেখাটি নতুন/পুরাতন এবং আগ্রহী ছাত্র-ছাত্রী যারা গবেষণায় হাতে খড়ি নিতে কিংবা গবেষণার কাজ এগিয়ে নিতে চায় তাদের জন্য। যে সমস্যাগুলো আমি এখানে দিবো সেগুলো যদি আপনি করা শুরু করেন তাহলে বুঝতে পারবেন আপনার টেকনিক্যাল দক্ষতার লেভেল কোথায় আর কীভাবে আপনাকে ইনপ্রুভ করতে হবে। কিছু কিছু সমস্যা আমি উল্লেখ করবো যেগুলো গবেষণায় যারা ইতোমধ্যে অভিজ্ঞ তাদের জন্য উপযোগী হবে।

নীচে ইন্টারেস্টিং কিছু কাজের আইডিয়া দিচ্ছি। এই কাজগুলো করে কোন জার্নালে পাবলিশ করা হয়তো যাবে না কিন্তু সে ধরনের কাজ করার জন্য আপনাদের প্রস্তত করতে সহায়ক হবে।

Read More

গবেষণা পদ্ধতি ও কোলাবরেটিভ কাজের ধারা

সবকিছুই এখন দ্রুত চলছে — প্রযুক্তির উন্নয়ন হচ্ছে দ্রুত, সামাজিক পরিবর্তন হচ্ছে অনেকটা চোখের সামনেই, বাড়ছে মানুষ, আর সেইসাথে বাড়ছে ডেটা!

সময়ের প্রয়োজনে গবেষণা এখন হয়ে উঠেছে কোলাবরেটিভ বা সহযোগিতামূলক। এতে সুবিধা অনেক। একসাথে অনেক ফিল্ডের এক্সপার্টরা কাজ করছে যার ফলে প্রোডাক্টিভিটি বেড়েছে। অর্থাৎ অল্প সময়ে দ্রুত প্রোডাক্ট (রিসার্চ পেপার) বের করা সম্ভব হচ্ছে। নব্বইয়ের দশক থেকে শুরু করে তার পরবর্তী সময়কালে কোলাবরেটিভ কাজের সুযোগ ও আগ্রহ দুইই বেড়েছে।

তরুণ গবেষকদের কোলাবরেটিভ কাজ শুরু করার প্রাথমিক ধাপ হলো রিসার্চ কীভাবে করে সে সম্পর্কে ধারণা থাকা। আমাদের দেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে রিসার্চ মেথডলজি নামে একটি বিষয় পড়ানো হয়। গবেষণা পদ্ধতি জানতে এবং তার ব্যবহারিক রূপ দেখতে এই কোর্সের কোন বিকল্প নেই। কাজ করে করে কাজ শেখা যায় তবে সেটি আরো এফিসিয়েন্ট হয় যদি তাত্ত্বিক জ্ঞান অর্জন করা থাকে। যেটি সম্ভব হয় এরকম কোর্স করার মাধ্যমে।

গবেষণা পদ্ধতির স্টেপ বাই স্টেপ বর্ণনা করেছেন রাগিব হাসান তার গবেষণায় হাতেখড়ি বইটিতে। আমি নতুন করে চাকা আবিষ্কার না করে বরং সংক্ষেপে ধাপগুলো তুলে ধরছি। এটি বিশেষ করে যারা আমার সাথে কাজ করতে চান তাদের জন্য অবশ্যপাঠ্য। তাছাড়া নিজেদের গবেষণাতেও এই ধাপগুলো অনুসরণ করা যাবে। হয়তো কাজের ধারা কিছুটা বদলাতে হতে পারে। সেটি নির্ভর করবে কী ধরনের গবেষণা হচ্ছে তার উপর।

Read More